গুগল এডসেন্স এডস লিমিট কেনো হয়?

আমরা যারা ব্লগিং করি এবং যাদের এডসেন্স রয়েছে তাদের সবারই একটা বিষয়ে আইডিয়া থাকা উচিত যে কেন আমাদের এডস মাঝে মাঝে গুগল এডসেন্স লিমিট করে দেয়।


কিসের জন্যই বা আমাদের এ ধরনের সমস্যাতে পড়তে হয় এটি কিভাবে ঠিক করতে হবে এটি নিয়েই মূলত আজকের বিস্তারিত পোষ্ট কারন যারা এডসেন্স নিয়ে নতুন কাজ করছে তাদের অনেকেই এ ধরনের সমস্যা তে বেশি পড়ে এবং দিশেহারা হয়ে যায়।


তো বন্ধুরা আশা করি আজকের এই বিস্তারিত ব্লগে আপনি খুব ভালো ভাবেই বুঝতে পারবেন গুগল এডস লিমিট কেনো হয়? এবং হলে কি করবেন!

তো চলুন আর কথা টা না বাড়িয়ে দেখে নেই আমাদের আজকের বিস্তারিত আলোচনার বিষয় গুলি।

গুগল এডসেন্স এডস লিমিট কেনো হয়?

১। Google Adsense Limit  এর প্রধান কারন হচ্ছে ইনভ্যালিড ট্রাফিক।

এই ইনভ্যালিড ট্রাফিক কি?

আমরা যারা নতুন ব্লগিং করি তারা অনেকেই এটা জানি যে আমাদের সাইটে মাঝে মাঝে বিভিন্ন ভাবেই বট টাইপ কিছু সার্ভার বা সাইট থেকে ভিজিটর আসে এবং যে ভিজিটর গুলি আসে তাদের নির্দিষ্ট কোন লোকেশনও নেই।
কিংবা কোন সোর্স এ থেকে এসেছে সেটিও আমাদের সামনে আসে না বলেই আমরা বুঝতে পারি যে আমাদের সাইটে বট এর পেজ ভিউস বাড়ছে।


কিন্তু যারা একেবারেই নতুন কিছুই জানেন না এডসেন্স এর বিষয়ে তারা ভাবেন যে এটি হয়তো অনেক ভালো।

কিন্তু এটি আমাদের সাইট এর গুগল এডস লিমিট হবার একটি প্রধানতম কারন। 

আর এই ধরনের বট থেকে মুক্তি পেতে হলে আপনি চেষ্টা করুন ক্লাউডফ্লেয়ারের ডিএনএস সেটাপ করতে।

এতে করে আপনার সাইটে বট ভিউস করতে পারবে না। 

সাইটে এটার্ক আসলেই অটোমেটিক ভাবে তাদের কে থামিয়ে দিবে বা ব্লকড করে দিবে।

২। নিজের এডস এ ক্লিক করাঃ আমাদের যাদের সাইটে এডসেন্স রয়েছে আমরা অনেক সময় বেশি ইনকাম এর জন্য আমরা আমাদের সাইটের এডস গুলি তে নিজেরাই নিজেদের এডস গুলি তে বসে বসে ক্লিক করি।


এতে আমাদের পেজ ভিউস এর তুলনায় এডসেন্স এর পেজ সিটিআর বেড়ে যায়। 
আর পেজ সিটিআর ১০% এর উপরে গেলে এডস লিমিট চলে আসে আপনা আপনি কারন গুগল এডসেন্স অটোমেটিক্লি বুঝে যায় আপনি সৎ ভাবে এডস এ ক্লিক করে ইনকাম করছেন না কারন গুগল এডসেন্স এর ইনকাম এর প্রধান উৎসই হচ্ছে এডস ক্লিক।

৩। অন্য সাইটে পেইড প্রোমোশন করাঃ আমাদের মধ্যে অনেকেই আছি যারা এডসেন্স নিয়ে নতুন কাজ করছি এমন অবস্থায় আমাদের ভিজিটর কম থাকার কারনে আমরা অনেকেই ভাবি বিভিন্ন সোশ্যাল সাইট থেকে আমরা প্রচুর ভিজিটর নিয়ে কাজ করতে পারি কারন এটি আমাদের জন্য সহজ।


আর এই বিষয় টি ভেবেই আমরা অনেকেই আছি ফেসবুকের বিভিন্ন পেজে আমাদের এডসেন্স সাইটের পোষ্ট কপি করে উক্ত পেজে আমাদের সাইটের লিংক এ পেষ্ট করে বুষ্ট করে দেই।

যে কাজ টি একেবারেই ভুল!!!!!!!!

এ ধরনের পেজ প্রোমোশন বা পেইজ থেকে সাইট ভিজিটর বা ক্লিক নেয়া আমাদের এডসেন্স একাউন্ট এর জন্য ক্ষতিকর।

এটির জন্যই আমাদের এডস লিমিট এর মতন সমস্যায় পড়তে হয় আর এই ধরনের সমস্যা বেশি হলে আমাদের এডসেন্স একাউন্ট অনেক সময় ডিজাবেল হয়ে যেতেই পারে যেকোন সময়।

৪। একই আইপি থেকে বিভিন্ন ডিভাইস এর ব্যবহার করাঃ আমরা অনেক সময় বেশি ইনকামের জন্য একই ডিভাইসে কানেক্টেড থাকা অবস্থায় আমাদের বন্ধুদের নিয়ে এডসে ক্লিক নেয়াই। 


যেটি আমাদের এডস লিমিট হতে পারে এটি আমরা বুঝতেই পারি না।

বিষয় টি এমন যে ধরুন আপনার কাছে একটি ফোন আছে বা ওয়াইফাই রাউটার আছে।

এবং অই রাউটার বা ফোনের হটস্পটে আপনার বাসার ৩,৪ টা মোবাইল কানেক্ট আছে।

এখন আপনি অই সকল ফোন থেকে সাইটে ঢুকে ক্লিক নিলেন এতে করে গুগল আপনাকে ধরে ফেলবে কারন আপনার ব্যবহৃত আইপি তো একটাই তাই এ ধরনের কাজ গুলি থেকে বিরত থাকতে হবে।

এবারে আসি এডস লিমিট হলে কি করবেন?

এডস লিমিট হলে আমরা অনেকেই আছি দিশেহারা হয়ে যাই এবং অনেকেই আছি যারা সাইট থেকে এডসেন্স এর কোড রিমুভ করে দেই এবং এডসেন্স একাউন্টে দেখি আমাদের এডস লিমিট চলে যাচ্ছে।


কিন্তু এ কাজ টি করা একেবারেই ভুল। কারন আপনি কোন এডস দেখাচ্ছেন না বলেই তারা এডস লিমিট তুলে নিচ্ছে।

তাই চেষ্টা করবেন এডস লিমিট হয়ে গেলে প্রচুর পরিমানে অর্গানিক ট্রাফিক ঢুকানোর জন্য। 


সাইটে আপনি যত অর্গানিক ট্রাফিক নিবেন ততই আপনার সাইটে ভ্যালু বাড়বে এবং গুগল আপনার এডস লিমিট তুলে দিবে।

তো বন্ধুরা গুগল এডসেন্স অনেক টাই সেন্সেটিভ, তাই এটি প্রধান্য দেয়ার থেকে আপনি চেষ্টা করুন অর্গানিক ট্রাফিক ইনপুট করার জন্য।


তাহলে কখনোই এ ধরনের লিমিটেশনে পড়েতে হবে না।

আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন, তাই উক্ত বিষয় গুলি খেয়াল করলেই এডস লিমিট থেকে খুব অল্প সময়ের মধ্যেই আপনি মুক্তি পাবেন এবং গুগল ও তাদের এডস আবারো দেখানো শুরু করবে।।

আজকের বিস্তারিত এতো টুকুই আমি চেষ্টা করেছি আপনাদের সাথে গুগল এর এডস লিমিট নিয়ে আলোচনা করার। 

তাই বন্ধুরা যদি আমার পোষ্ট টি ভালো লাগে তাহলে অবশ্যই বন্ধুদের সাথে ভাগ করে নিবেন এতে করে আপনি সহ আপনার বন্ধুরাও সাহায্য পাবেন।

Leave a Comment