অনলাইনে আয়ের সহজ পদ্ধতি ২০২০

 অনলাইনে আয়ের সহজ পদ্ধতি ২০২০

হাই বন্ধুরা আমি আবারো আপনাদের জন্য নতুন একটি টপিক নিয়ে হাজির হয়েছি।  কারন প্রতিদিনই কিছু না কিছু টিপস আপনাদের অনেক সাহায্য করে আসছে। তো বন্ধুরা আপনারা অনেক মাঝে মাঝে বিভিন্ন গ্রুপ আর গুগলে অনলাইনে আয়ের সহজ পদ্ধতি খুঁজে থাকেন।

কিন্তু অনলাইনে আয় করতে হলে আপনাকে আগে তো জানতে হবে কোন কোন মাধ্যম গুলি আপনার জন্য সহজ হবে।

কারন সবার পক্ষেই সব সময় ফ্যামিলির উপর নির্ভর করা সম্ভব হয় না। আর টাকা সেতো যাই করি না কেনো আমাদের সবার এটা লাগবেই।

আবার অনেক সময় আছে পরিবারের উপর প্রেশারো দেয়া যায় না টাকার জন্য, যাই হোক আজকের বিস্তারিত একটি আলোচনার মাধ্যমে আপনাদের জানিয়ে দেয়ার চেষ্টা করবো যে কিভাবে আপনি অনলাইনে ইনকাম করতে পারবেন এবং অনলাইনে আয়ের সহজ পদ্ধতি গুলি কি?

অনলাইনে আয়ের সহজ পদ্ধতি গুলো কি?

অনলাইন হচ্ছে আমাদের জন্য একটি বাড়তি আয়ের উৎস যেখান থেকে আমরা বিভিন্ন ভাবে আয় করতে পারি অনেক সহজেই। যদিও অনলাইন এ কাজ করতে গেলে আমাদের দরকার শ্রম আর ধৈর্য্য।

তাই কাজ করার জন্য অবশ্যই আপনাকে প্রচুর সময় দিতে হবে। কারন অনলাইনে কেউ শুধু শুধু আপনাকে কাজ বা টাকা দিবে না।।

তো চলুন আর কথা না বাড়িয়ে আমাদের আজকের বিষয় গুলি সম্পর্কে জেনে নেই।

ব্লগিং করে আয়ঃ

বর্তমান সময়ে সব থেকে জনপ্রিয় পেশা এটি, এবং এই পেশাতে প্রতিদিনই মানুষ বাড়ছে।

বিশেষ করে যারা টুকিটাকি লেখা লেখি করছেন তাদের জন্য হতে পারে আয় করার জন্য একটি বিশেষ মাধ্যম এটি।

কারন আপনি যদি খুব ভালো মানের লেখা প্রকাশ করে থাকেন তাহলে অনেক ভালো ইনকাম আপনি এখান থেকে করতে পারবেন। 

তাছাড়া এতে আপনার পপুলারিটি বেড়ে যাবে আপনার ভিজিটর ও বেড়ে যাবে। যেটি অনেক গুরুত্বপূর্ন বিষয় বলা যায়। কারন আপনার যত পরিমান ভিজিটর হবে আপনি তত আয় করতে পারবেন এখান থেকে।

এবার বলি আয় আসবে কিভাবে ?

আপনি চাইলে আপনার ব্লগ সাইট বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান এর এডস বা বিজ্ঞাপন ব্যবহার করে আপনার ভিজিটর দের সামনে প্রকাশ করতে পারবেন।

আপনি যদি একজন বইখোড় মানুষ হয়ে থাকেন তাহলে আপনি বইয়ের বিভিন্ন রিভিউ নিয়ে আলোচনা করতে পারেন, কারন প্রচুর মানুষ চাইবে বই টি পড়ার আগে এর রিভিউ দেখে নেয়ার জন্য।।

পাশাপাশি আপনি নতুন রাইটার দের থেকে টাকা নিয়ে আপনার সাইটে প্রোমোশনের কাজ করতে পারেন।

এতে আপানার একটি বাড়তি আয় হতে থাকবে, মোটকথা আপনি ব্লগিং করলে একটি লম্বা সময় নিয়ে আয় করতে পারবেন।

এডসেন্স দেখিয়ে আয়ঃ

আপনার যদি একটি ভালো মানের ব্লগ থাকে তাহলে আপনি এডসেন্স এর জন্য এপ্লাই করে এডসেন্স এর এডস দেখিয়েও আয় করতে পারবেন।। এডসেন্স হচ্ছে পৃথিবীর সব থেকে বড় বিজ্ঞাপন এর একটি মার্কেট প্লেস যেখান থেকে প্রচুর মানুষ ইনকাম করছে।

এডসেন্স হচ্ছে গুগলেরই একটি প্রতিষ্ঠান এবং তারা মূলত বিভিন্ন কোম্পানীর এডস দেখিয়ে তাদের থেকে টাকা নিয়ে কিছু অংশ আপনাকে দিবে। তবে এক্ষেত্রে আপনার প্রচুর ভিজিটর থাকতে হবে আপনার সাইটে।

তাছাড়া আপনি চাইলে এডসেন্স একাউন্ট সেলিং এর কাজ করে বিশাল এমাউন্ট এর কাজ করতে পারবেন। তবে এর জন্য আপনাকে অবশ্যই ইউনিক এবং ভালো মানের আর্টিকেল লিখতে হবে।

ইউটিউব থেকে আয়ঃ

বর্তমান সময়ে ভিডিও এর চাহিদা বেড়েছে ২ গুন সেই সাথে বেড়েছে প্রচুর কন্টেন্ট ক্রিয়েটর। কারন ইউটিউব হচ্ছে সেই জায়গা যেখানে আপনি একবার হাজার হাজার সাবস্ক্রাইউবার পেলে আপনাকে আর পিছনে তাকাতে হবে না।

কারন ইউটিউবং করে বর্তমান যুগে প্রচুর আয় ঘরে বসেই করা যাচ্ছে। সে জন্য আপনাকে মান-সম্মত ভিডিও বানানো শিখতে হবে। আর আপনি যদি ভালো মানের ভিডিও পাব্লিশ করতে পারেন তাহলে খুব অল্প সময়ে সেটি থেকে এডসেন্স এর এপ্লাই করে আর্নিং করতে পারবেন।

ডিজিটাল মার্কেটিং করে আয়ঃ 

ডিজিটাল মার্কেটিং এর কাজ হচ্ছে মূলত বিভিন্ন পন্য বা ক্রেতার ব্যবসা কে প্রচার করা। এর জন্য যদিও কয়েক টি মাধ্যম থাকতে পারে। তবে সব থেকে বেশি হয় ফেসবুক বুষ্টিং ও গ্রুপিং এর মাধ্যমে। কারন আমরা জানি প্রথম সোশ্যাল মাধ্যম হিসাবে ফেসবুক সবার প্রথমে রয়েছে।

তাই আপনি যদি ফেসবুক এ পেজ বুষ্টিং এর কাজ করতে পারেন তাহলে খুব তারাতারি অনলাইনে আয় করতে পারবেন।

এছাড়া গ্রুপিং করা, ফেসবুকা আইডি সেল বা কাষ্টমারের পন্য বিভিন্নগ গ্রুপে বিক্রি করেও আপনি আয় করতে পারেন।

কন্টেন্ট রাইটার হিসাবেঃ

আপনি যদি খুব ভালো মানের কন্টেন্ট লিখতে পারেন তাহলে প্রচুর আয় করতে পারবেন। সে জন্য আপনি চাইলে জনপ্রিয় মার্কেট প্লেস গুলি তে আপনি কণ্টেন্ট লিখতে আগ্রহী তাই লিখে গিগ প্রকাশ করতে পারেন। এর জন্য ফাইভার হচ্ছে আপনার জন্য বেষ্ট। 

তাছাড়া আপনি চাইলে বিভিন্ন সাইটে আর্টিকেল লিখার কাজ করতে পারেন ফুল টাইম হিসাবেও। এবং মাস শেষে অনেক ভালো একটা এমাউন্ট আপনি ইনকাম করতে পারবেন।

তবে খুচরা আর্টিকেল ব্যবসায়ী হয়ে লাভ নেই কারন একটি আর্টিকেলের দাম প্রায় ৫-১০০ ডলারের মধ্যে দিয়ে থাকে।

তাই চেষ্টা করবেন ভালো এবং যুক্তিসংগত কন্টেন্ট লিখতে।

আর আপনি যদি খুব ভালো টাইপিং পারেন কিংবা খুব স্পীডে লিখতে পারেন তাহলে আপনি ডাটা এন্ট্রি সহ এক্সেল এই ধরনের কাজ গুলি করতে পারবেন অনায়েসেই।

ফেসবুক থেকে আয়ঃ

ফেসবুক থেকে আয় করতে হলে আপনি পেইজ এর মাধ্যমে করতে পারেন এর জন্য আপনার প্রয়োজন হবে একটি ১০ কে লাইকের মনিটাইজেশন হওয়া পেইজ।

এতে আপনি ইউনিক ভাবে মেইক করা ভিডিও পাব্লিশ করেও আয় করতে পারবেন। আর ১০০$ হলে সেই টাকা আপনি ব্যাংকে নিতে পারবেন।

এছাড়া আপনার যদি বড় পেজ থাকে সে ক্ষেত্রে লিংক শেয়ারের জন্য রেন্ট দিতে পারবেন, কিংবা অন্য পেজ এর পোষ্ট শেয়ার করে একটি ভালো টাকা আয় করতে পারবেন।

মার্কেট প্লেস থেকে আয় করাঃ মার্কেট প্লেস বলতে ফাইভার, কিংবা ফ্রিল্যান্সের সাহায্য নিতে পারেন। কারন এগুলি সব থেকে বড় কাজের জনপ্রিয় একটি মাধ্যম। এখানে আপনি প্রচুর কাজ পাবেন তাই আপনি যে ধরনের কাজে বেশি যোগ্য সেই ধরনের কাজ বা সার্ভিস দেয়ার চেষ্টা করুন। আর এই সার্ভিস গুলি আপনি ঘরে বসেই করতে পারবেন।

এখানে আপনি ডাটা এন্ট্রি, কপি পেষ্ট, রিরাইট এর মত সহজ কাজ থেকে শুরু করে ওয়েব ডেভ্লপমেন্ট,ওয়ার্ডপ্রেস সাইট বানানো সহ বিভিন্ন ধরনের সার্ভিস করতে পারবেন।

তো বন্ধুরা আশা করি সবাই বুঝতে পেরেছেন আজকের বিস্তারিত আলোচনার বিষয় বস্তু গুলি। আশা করি সবাই খুব ভালো ভাবে বুঝতে পেরেছেন, এই ছিল আজকের অনলাইনে আয়ের সহজ পদ্ধতি গুলি।

তাই যদি আপনার ভালো লেগে থাকে তো বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন। এতে আপনি সহ আপনার বন্ধুরাও সাহায্য পেতে পারেন।

Leave a Comment